দ্বিতীয় খণ্ড

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ: দলিলপত্র থেকে বলছি (দ্বিতীয় খণ্ড)

দলিল প্রসঙ্গ: পটভূমি (১৯৫৮-১৯৭১)

এই খণ্ডে সংগৃহীত দলিলত্রের কালসীমা ১৯৫৮ সনের ৭ অক্টোবর থেকে ১৯৭১ সনের ২৬ মার্চ পর্যন্ত। সামরিক আইন জারির পর থেকে ১৯৬২ সালের ৮ই জুন সামরিক আইনের অবসান পর্যন্ত সব ধরণের রাজনৈতিক কার্যকলাপ নিষিদ্ধ ছিল। ফলে এই সময়ের দলিলপত্রে মুখ্যত সামরিক সরকারের বিভিন্ন ক্রিয়াকাণ্ডই প্রতিফলিত হয়: বিভিন্ন অধ্যাদেশ জারি, যথা-এবডো (১৬ পৃষ্ঠা), লেজিসলেটিভ পাওয়ার অর্ডার (২৮ পৃষ্ঠা), মৌলিক গণতন্ত্র আইন (৩০পৃষ্ঠা), তার অধীনে নির্বাচন সংক্রান্ত রিপোর্ট (৪৮-৬১ পৃষ্ঠা), শাসনতন্ত্র কমিশন রিপোর্ট (৭৭-১২৬ পৃষ্ঠা) এবং ১৯৬২ সনের শাসনতন্ত্র সংক্রান্ত সরকারী প্রতিবেদন (১৫৮-১৭২পৃষ্ঠা)। এর সঙ্গে রয়েছে বাংলাদেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতার গ্রেফতারের সংবাদ (২,৩ পৃষ্ঠা), শহীদ দিবস পালনের প্রতি সরকারের মনোভাব (৬৩-৭০ পৃষ্ঠা), এবং ছাত্ররাজনীতির তৎকালীন পরিস্থিতি (১২৮ পৃষ্ঠা)। সরকারী কাগজপত্র থেকে সংগৃহীত একটি দলিলে পূর্ব পাকিস্তান লিবারেশন ফ্রন্ট কর্তৃক স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা সম্পর্কিত পরিকল্পনার একটি দলিল এই অংশে গৃহীত হয়েছে। তা ছাড়া প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খান এবং জেনারেল আজম খানের ব্যাক্তিগত পত্র বিনিময়ের মাধ্যমে পাকিস্তানি শাসকদের অন্তর্দ্বন্দ্বের পরিচয় ফুটে উঠেছে (১৪৭-১৫৬ পৃষ্ঠা)। ১৯৬২ সনে সামরিক আইন অবসানের পরপরই তৎকালীন সরকার কর্তৃক প্রদত্ত শাসনতন্ত্রের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের নেতৃবৃন্দের প্রতিবাদ (১৭৩ পৃষ্ঠা) এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সমন্বয়ে জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট প্রতিষ্ঠার দলিল সন্নিবেশিত হয়েছে ১৮৯ পৃষ্ঠায়। ১৯৬২ সনে শিক্ষা কমিশন রিপোর্টের বিরুদ্ধে ছাত্রতের প্রদেশব্যাবী হরতাল ও প্রতিবাদের দলিল সন্নিবেশিত হয়েছে ১৮৩-১৮৮ পৃষ্ঠায়। ১৯৬৩ থেক ১৯৬৫ সন পর্যন্ত যেব দলিল অন্তর্ভূক্ত হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে ফ্রান্সাইজ কমিশন রিপোর্ট (১৯৬-২১৫ পৃষ্ঠা), সরকার কর্তৃক সংবাদপত্রের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ (২২০-২২২ পৃষ্ঠা), বাংলাদেশের জনসাধারণ কর্তৃক দাংগা প্রতিরোধ (২২৫ পৃষ্ঠা), সর্বদলীয় ভিত্তিতে ভোট ও প্রত্যক্ষ নির্বাচন দাবী (২২৬ পৃষ্ঠা) এবং ১৯৬৫ সনের রাষ্ট্রপতি নির্বাচন। এ নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের বিরোধী প্রার্থী মিস ফাতেমা জিন্নাহকে পূর্ব পাকিস্তানের সকল স্বাধিকারকামী রাজনৈতিক দলই সমর্থন জানায়। এর দলিল পাওয়া যাবে ২২৮ থেকে ২৫৫ পৃষ্ঠায়। নির্বাচনের ফলাফলের পর বাংলাদেশের প্রধান রাজনৈতিক দলগুলি দেশের মানুষের সামনে নতুন কর্মসূচী প্রদান করে। ১৯৬৫ সনে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি ১৪-দফা কর্মসূচী প্রদান করে (২৫৭-২৬৬ পৃষ্ঠা); ৬ দফার সমর্থনে ৭ই জুনে অনুষ্ঠিত হরতাল, পুলিশের গুলিবর্ষণ (২৭৭ পৃষ্ঠা) এবং এর সর্বব্যাপী প্রতিবাদের চিত্র (২৭৭-২৮৩ পৃষ্ঠা) দলিলসমূহে পাওয়া যাবে। বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির ওপর পাকিস্তানী শাসকবর্গের আক্রমণাত্মক নীতির বিরোধিতার দলিল সংযোজিত হয়েছে ২৮৮-২৯০ পৃষ্ঠায়। পরবর্তীকালে বাংলা বর্ণমালার ওপর হস্তক্ষেপের প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে আন্দোলনের চিত্র পাওয়া যাবে ৩৭২-৩৭৯ পৃষ্ঠায় সন্নিবেশিত দলিলসমূহে। ১৯৬৮ সনের ৬ই জানুয়ারী কিছুসংখ্যক বেসামরিক বাঙালী নাগরিক এবং সামরিক বাহিনীর সদস্যদের উপর পূর্ব পাকিস্তানকে বিচ্ছিন্ন করার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয় (৩০৪-৩০৬ পৃষ্ঠা)। আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা বলে কথিত এই মামলায় প্রধান আসামী হন জেলে আটক অবস্থায় আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ মুজিবুর রহমান। এই মামলা সংক্রান্ত দলিল রয়েছে ৩০৪-৩৬৮ পৃষ্ঠায়। আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা, বর্ণমালা সংস্কার প্রচেষ্টা, অর্থনৈতিক অসন্তোষ, সঙ্গবাদপত্রের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের মধ্যে ঐক্যের প্রচেষ্টার পরিপ্রেক্ষিতে রাজনৈতিক আবহাওয়া পাকিস্তানবিরোধী হয়ে ওঠে। এই সময়ে পূর্ব বাংলা শ্রমিক আন্দোলন (পরবর্তীকালে সর্বহারা পার্টি) প্রণীত স্বাধীন বাংলা প্রতিষ্ঠার আহ্বানের দলিল সংযোজিত হয়েছে ৩৮২-৩৯৬ পৃষ্ঠায়। গণ-অসন্তোষের এই পরিস্থিতির মধ্যে ১৯৬৮ সনের ৬ ডিসেম্বর মওলানা ভাসানী ঘেরাও ও হরতালের ডাক দেন। বিভিন্ন রাজনৈতিক এবং ছাত্র সংগঠন কর্তৃক এই আন্দোলনকে দেশব্যাপী বিস্তৃত করার দলিল পাওয়া যাবে ৩৯৮-৪৩৮ পৃষ্ঠায়। “সংগ্রামীছাত্রসমাজের”১১–দফাআন্দোলনএবংগণভ্যুত্থানসংক্রান্তদলিলসংযোজিতহয়েছে৪০৮-৪১২পৃষ্ঠায়। আগরতলা মামলা প্রত্যাহার, গোলটেবিল বৈঠক এবং জেনারেল ইয়াহিয়ার কাছে প্রেসিডেন্ট আইউবের ক্ষমতা হস্তান্তরের দলিল পাওয়া যাবে ৪৩৮-৪৫০ পৃষ্ঠায়। ১৯৬৯ সনের ২৬ মার্চ ক্ষমতা দখলের পরবর্তী সময় থেকে জেনারেল ইয়াহিয়া খান কর্তৃক সর্বজনীন প্রত্যক্ষ ভোটের ভিত্তিতে নির্বাচন, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সাংগঠনিক ও নির্বাচনী প্রচারণা, আইনগত কাঠামো আদেশ এবং তার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক দলসমূহের প্রতিবাদ এবং কয়েকটি রাজনৈতিক দল কর্তৃক প্রকাশ্যে স্বাধীনতার পক্ষে বক্তব্য রাখার দলিল দেয়া হয়েছে ৪৫১-৫৯২ পৃষ্ঠায়। ১৯৭০ সনের নির্বাচনে পাকিস্তানের ভিত্তিতে সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হিসেবে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ বিজয় সত্ত্বেও পাকিস্তানী শাসকবর্গ কর্তৃক ক্ষমতা হস্তান্তরের সম্ভাবনা সম্পর্কে সংশয়ের এবং পাকিস্তান পিপলস পার্টির নেতা জুলফিকার আলী ভুট্টো কর্তৃক ক্ষমতা হস্তান্তরের বিরোধিতার দলিল রয়েছে ৫৫২-৬৬১ পৃষ্ঠায়। এ ছাড়া পশ্চিম পাকিস্তানী রাজনৈতিক দল যারা গণপরিষদে যোগদান করতে চেয়েছিলেন, পাকিস্তানী শাসকবর্গ কর্তৃক ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রতি অন্তরায় সৃষ্টির বিরুদ্ধে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের বক্তব্য এবং যেসব রাজনৈতিক দল স্বাধীন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠার পক্ষে বক্তব্য পেশ করেন সেসব বিষয়ের ওপরো দলিল অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে এই অংশে। ১৯৭১ সনের ১লা মার্চ জেনারেল ইয়াহিয়া খান কর্তৃক জাতীয় পরিষদ অধিবেশন স্থগিত করার ঘোষণা সংযোজিত হয়েছে ৬৬৪ পৃষ্ঠায়। এই ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে সমগ্র বাংলাদেশে যে অসন্তোষ পরিলক্ষিত হয় তার দলিলও রয়েছে ৬৯২ পৃষ্ঠা পর্যন্ত। বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে অনুষ্ঠিত হরতাল ও সর্বব্যাপী প্রতিবাদের বিরুদ্ধে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী অস্ত্র ব্যাবহার করে (৬৯১ পৃষ্ঠা) এবং ১৯৭১-এর ৬ই মার্চ ইয়াহিয়া খান গণ-অসন্তোষকে পাকিস্তানের সংহতি বিরোধী বলে আখ্যায়িত করেন (৬৯৩ পৃষ্ঠা)। ১৯৭১ সনের ৭ই মার্চ ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষণের দলিল সন্নিবেশিত হয়েছে ৭০৩-৭৪৫ পৃষ্ঠায়। অসহযোগ আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগ নেতৃ বৃন্দের সঙ্গে আলোচনার জন্য প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান, জুলফিকার আলী ভুট্টো এবং অন্যান্য পাকিস্তানী নেতার ঢাকা আগমন এবং ১৬ই মার্চ থেকে এই আলোচনা সংক্রান্ত দলিলাদিও রয়েছে। আলোচনা সমাপ্তির পূর্বেই ঢাকাসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে সামরিক বাহিনী জনগণের ওপর সশস্ত্র আক্রমণ চালায়। এ খণ্ডে তিনটি সংযোজনী দেয়া হয়েছে। প্রথমটিতে (৭৯৩-৮০৮ পৃষ্ঠা) ৬ দফার নিরিখে আওয়ামী লীগের সংবিধান কমিটি-প্রণীত পাকিস্তানের ফেডারেল শাসনতন্ত্রের খসড়ার অংশবিশেষ, দ্বিতীয়টিতে বাংলাদেশের একটি দৈনিকের ১৯৬৪-৬৫ সনের দুটি উপসম্পাদকীয়সহ ১৯৭১ সনের ১ মার্চ থেকে ২৫ মার্চ পর্যন্ত বিভিন্ন দৈনিকের সংবাদ শিরোনাম মাধ্যমে স্বাধীনতা ঘোষণার আনুপূর্বিক বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতির পরিচয় জ্ঞাপক কয়েকটি দলিল (৮০৯-৮৩৩ পৃষ্ঠা) সন্নিবেশিত হয়েছে। তৃতীয় সংযোজনীটি হচ্ছে ইয়াহিয়া-মুজিব বৈঠকের ওপর একটি বিশেষ প্রতিবেদন (৮৩৪-৮৪৩ পৃষ্ঠা)।

 সূচিপত্র

(পৃষ্ঠা নাম্বারগুলো মূল দলিলের পৃষ্ঠা নাম্বার অনুযায়ী লিখিত)

(ডিজিটাইজেশনের তারিখঃ ১২/১১/২০১৬ খ্রিঃ)

ক্রমিক বিষয়বস্তু পৃষ্ঠা নং অনুবাদক
 আইয়ুব খান কর্তৃক সামরিক আইন ঘোষণা রুবাইদ মেহেদী অনিক
 আটকের কারন জানিয়ে মাওলানা ভাসানী কে পাকিস্তান সরকারের চিঠি নাহিদ মুহাম্মদ

 

 রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ গ্রেপ্তার নাহিদ মুহাম্মদ

 

 বোর্ড অব ন্যাশনাল রিকনস্ট্রাকশন নিযুক্ত স্টাডি গ্রুপ কর্তৃক পাকিস্তানের জাতীয় সংহতি নাহিদ মুহাম্মদ
শিহাব শারার মুকিত
 পূর্ব পাকিস্তানের সামরিক শাসনের প্রতিক্রিয়া জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কর্তৃক পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নরকে লেখা চিঠি ১৩ শিহাব শারার মুকিত
 নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতার অযোগ্যতা সম্পর্কিত আদেশ ঘোষিত ১৬ নীতেশ বড়ুয়া

 

 এবডো অন্তর্ভূক্তকরণ সংক্রান্ত সরকারী চিঠি ২২ নীতেশ বড়ুয়া

 

 প্রেসিডেন্ট কর্তৃক ‘লেজিস্টেটিভ পাওয়ার্স অর্ডার’ ঘোষণা ২৮ নীতেশ বড়ুয়া

 

 ‘মৌলিক গণতন্ত্র আইন’ ঘোষিত ৩০ নীতেশ বড়ুয়া

 

১০  পূর্ব বাংলা লিবারেশন ফ্রন্ট সংক্রান্ত তথ্য এবং প্রদেশের তৎকালীন রাজনৈতিক তৎপরতার ওপর সরকারী গোপন প্রতিবেদন ৩৩ নাহিদ মুহাম্মদ

নীতেশ বড়ুয়া

ফয়সাল

১১  মৌলিক গণতন্ত্রের ভিত্তিতে প্রথম অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন কাউন্সিল নির্বাচন সম্পর্কে প্রতিবেদন ৪৮ নিলয় কুমার সরকার
ফয়সালমুহাইমিনুল হক ওয়াফিরুবাইদ মেহেদী অনিকনীতেশ বড়ুয়ানাজমুস সাদাত নিলয়
১২  শহীদ দিবস উদযাপন সম্পর্কে সরকারী প্রতিবেদন ৬২ হাসান শিপলু
১৩  বিভিন্ন রাজনৈতিক প্রশ্নে সরকারী গোপন প্রতিবেদন ৭২ অভিজিৎ সরকার
১৪  শাসনতান্ত্রিক কমিশন এর রিপোর্ট ৭৭ নিলয় কুমার সরকার

আবেদ হোসাইন

অপূর্ব
তানজিলুর রহমান
কাফি রশীদ

অভিজিৎ সরকার

সুজয় বড়ুয়া

১৫  পূর্ব পাকিস্তানে ছাত্র রাজনীতি নিয়ে প্রতিবেদন ১২৮ জ্বিন কফিল
১৬  অধ্যাপক রহমান সোবহান কর্তৃক দুই প্রদেশের জন্য দুই অর্থনীতির সুপারিশ ১৩০ পল্লব দাস
১৭  নিরাপত্তা আইনে সোহরাওয়ার্দী গ্রেপ্তার ১৩২ কায়সার ইকবাল
১৮  সোহরাওয়ার্দী গ্রেপ্তারে ছাত্র সমাজের প্রতিবাদঃ ঘটনা সম্পর্কে সরকারী প্রেসনোট ১৩৪ জ্বিন কফিল
১৯  ১৯৬২ সনের শাসনতন্ত্র ঘোষণার পর পূর্ব পাকিস্তানে সম্ভাব্য ছাত্র রাজনীতি ও আন্দোলন মোকাবেলার পরামর্শঃ স্বরাষ্ট্র দপ্তরের প্রতিবেদন ১৩৫ নিলয় কুমার সরকার
২০  সোহরাওয়ার্দীকে গ্রেপ্তারের আগে পূর্ব পাকিস্তানের রাজনৈতিক অবস্থা সম্পর্কে প্রতিবেদন ১৩৮ সাকু চৌধুরী

 

২১  শাসনতন্ত্র সম্পর্কে আলোচনার জন্য প্রেসিডেন্ট আইউব কর্তৃক পূর্ব পাকিস্তান থেকে ৩০ টি নাম চেয়ে পাঠানোর প্রেক্ষিতে একটি চিঠি ১৪২ তরিকুল ইসলাম সৈকত
২২  কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে জনমত সৃষ্টির অভিযোগ জানিয়ে লিখিত চিঠির মাধ্যমে আইউব কর্তৃক গভর্নর আজম খানের পদত্যাগ পত্র গ্রহণ ১৪৭ আলী রেজা পিয়াল
২৩   আইউবের অভিযোগের জবাবে গভর্নর আজম খানের চিঠি ১৫০ নীতেশ বড়ুয়া
২৪  সামরিক শাসনের অবসান ১৫৭ সুমিত ব্যানার্জী
২৫  ১৯৬২ সালের শাসনতন্ত্র সম্পর্কে প্রকাশিত সরকারি পুস্তিকা ১৫৮ সুমিত ব্যানার্জী
নিলয় কুমার সরকার
ফকরুজ্জামান সায়েম
অপরাজিতা নীল
২৬  নয় নেতার বিবৃতিঃ শাসনতন্ত্র অকেজো, নতুন শাসনতন্ত্রের দাবী ১৭৩ রাজীব চৌধুরী
২৭  ১৯৬২ সনের রাজনৈতিক দলবিধি ১৭৮ তন্ময় দেব
২৮  শিক্ষা কমিশনের রিপোর্ট বাতিলের দাবীতে সারা প্রদেশে হরতাল পালিতঃ ঢাকায় গুলি, লাঠিচার্জ ও কাঁদুনে গ্যাস নিক্ষেপঃ একজনের মৃত্যু, শতাধিক আহতঃ অসংখ্য গ্রেফতার ১৮৩ জাহিদ মাসুম
২৯  গুলি ও নির্যাতনের প্রতিবাদে এবং বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবিতে দশজন রাজনৈতিক নেতার বিবৃতি ১৮৭ কিবরিয়া দূর্লভ
৩০  গুলি ও নির্যাতনের প্রতিবাদে ছাত্র সমাজের আহবানে তিন দিন ব্যাপী সারা প্রদেশে শোক দিবস ১৮৮ কিবরিয়া দূর্লভ
৩১  জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্টের প্রতি সমর্থন ১৮৯ কিবরিয়া দূর্লভ
৩২  সবার আগে গনতন্ত্র- সোহরাওয়ার্দীর ঘোষণা ১৯০ কিবরিয়া দূর্লভ
৩৩  দুই প্রদেশের বৈষম্য সম্পর্কে ডঃ এম, এন. হুদার অভিমত ১৯২ কিবরিয়া দূর্লভ
আলবাব ইয়াফেজ ফাতমি
৩৪  ফ্রান্সাইজ কমিশনের রিপোর্ট ১৯৬ তানজিলুর রহমান
নুরুল ইসলাম বিপ্লব
নীতেশ বড়ুয়া
নিলয় কুমার সরকার
৩৫  সামরিক শাসনোত্তর প্রথম শহীদ দিবসে ছাত্র সমাজের বক্তব্য ২১৭ নাহিদ মুহাম্মদ
৩৬  প্রেস এন্ড পাবলিকেশন অর্ডিন্যান্স ২২০ অভিজিৎ সরকার
৩৭  সাংবাদিকদের হরতাল ২২১ অভিজিৎ সরকার
৩৮  ১৭ই সেপ্টেম্বর “শিক্ষা দিবস” পালন করুন ২২৪ ইকফা নিশিতা
৩৯  ঢাকার সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ও দাঙ্গা প্রতিরোধ কমিটি ২২৫ ইকফা নিশিতা
৪০  সার্বজনীন ভোটাধিকার আদায়ের জন্য জনগণের প্রতি পূর্ব পাকিস্তানের প্রধান নেতৃবৃন্দের আবেদন ২২৬ ইকফা নিশিতা
৪১  প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিসেবে আইয়ুবের বিরুদ্ধে দলসমূহ কর্তৃক মিস ফাতেমা জিন্নাহ্ মনোনীত ২২৮ ইকফা নিশিতা
৪২  জনাব আইয়ুব খাঁর জবাবে হাজী মোহাম্মদ দানেশ ২৩০ এ, কে, এম সাইফুল্লাহ শিহান
মেহেদী হাসান মুন
৪৩  অপপ্রচারের জবাবে নির্বাচকমণ্ডলীর সদস্যদের প্রতি শেখ মুজিবুর রহমান ২৪২ শামীম মেহেদী
৪৪  মিস ফাতেমা জিন্নাহকে ভোটদানের জন্য কৃষক-জনতার প্রতি মাওলানা ভাসানীর আবেদন ২৪৩ শামীম মেহেদী
৪৫  গণতন্ত্রের প্রতীক মিস ফাতেমা জিন্নাহকে নির্বাচিত করুন ২৪৬ লিয়ন আকিক
৪৬  ‘রাষ্ট্রপ্রধান পদে মহিলা নির্বাচন জায়েজ- দশজন আলেমের বিবৃতি ২৪৯ অয়ন
৪৭  নির্বাচনোপলক্ষে সম্ভাব্য বিশৃঙ্খলা প্রতিরোধের সরকারী ব্যবস্থা সম্পর্কে ঘোষণা 
এবং
প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফলাফল
২৫৫ অয়ন
ফকরুজ্জামান সায়েম
৪৮  ন্যাপের ১৪ দফা ২৫৭ ফকরুজ্জামান সায়েম
কামরুন্নাহার ডানা
৪৯  ৬-দফা কর্মসূচী ২৬৭ জিসান ফেরদৌস রহমান
হৃদয় ফারহান
নীলাঞ্জনা অদিতি
৫০  ৭ই জুনের হরতালঃ ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে পুলিশের গুলিতে ১০ জন নিহতঃ সরকারী প্রেসনোট ২৭৭ নীলাঞ্জনা অদিতি
৫১  গণহত্যার প্রতিবাদে ও স্বায়ত্ত শাসনের দাবীতে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান ২৭৮ ফারহান নাশিদ রাখী
৫২  পুলিশের গুলিবর্ষণ সংক্রান্ত মুলতবি প্রস্তাব বাতিলের বিরোধী দলের জাতীয় ও প্রাদেশিক উভয়ই পরিষদ কক্ষ বর্জন ২৮৩ ফারহান নাশিদ রাখী
৫৩  দৈনিক ইত্তেফাকের প্রকাশনা বাতিল ২৮৪ পল্লব দাস
৫৪  পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্বশাসন দেশে বিপর্যয় সৃষ্টি করবে বলে আইয়ুব খানের বিবৃতি ২৮৬ মাশফিকুল হক হিমেল
৫৫  রবীন্দ্রসঙ্গীত বর্জনের বিরোধিতা ২৮৮ মাশফিকুল হক হিমেল
৫৬  রবীন্দ্রসঙ্গীত বর্জনের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে মাওলানা ভাসানীর বিবৃতি ২৮৯ মাশফিকুল হক হিমেল
৫৭  হামুদুর রহমান কর্তৃক আরবি হরফে বাংলা ও উর্দু লেখার সুপারিশ ২৯০ মাশফিকুল হক হিমেল
৫৮  ৮ দফা কর্মসূচীর ভিত্তিতে ঐক্যবদ্ধ গণআন্দোলনের আহ্বান ২৯১ আরণ্যক নীলকন্ঠ
মিঠুন কুমার সেন
৫৯  ন্যাপের বিশেষ অধিবেশনে মাওলানা ভাসানী কর্তৃক আন্দোলনের কর্মসূচী পেশ ৩০০ বিপুল সরকার
৬০  রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামী গ্রেফতার ৩০৪ ফারজানা আক্তার মুনিয়া
৬১  সরকারী তথ্য বিবরণীর অভিযোগঃ শেখ মুজিব আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম হোতা ৩০৭ ফারজানা আক্তার মুনিয়া
৬২  সার্জেন্ট জহুরুল হকের বিরুদ্ধে ফর্মাল চার্জশিট ৩০৮ নীতেশ বড়ুয়া
কিবরিয়া দূর্লভ
নুরুল ইসলাম বিপ্লব
অভিজিৎ সরকার
নিলয় কুমার সরকার
রেবেকা খানম
জাহিদ মাসুম
৬৩  আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় আত্মপক্ষ সমর্থনে শেখ মুজিবের জবানবন্দি ৩৬৪ সোহেল
৬৪  পাকিস্তান লেখক সংঘের উদ্যোগে পাঁচদিন ব্যাপী মহাকবি স্মরণোৎসব ৩৬৯ তন্ময় বিশ্বাস
৬৫  বাংলা বর্ণমালা ও বানান সংস্কার প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের বক্তব্য ৩৭২ তন্ময় বিশ্বাস
৬৬  বর্ণমালা সংস্কারের প্রতিবাদে ৪২ জন বুদ্ধিজীবীর বিবৃতি ৩৭৫ সাজেদুর রহমান সুমন
৬৭  বাংলা ভাষা বর্জনের প্রতিবাদে সাধারণ ছাত্র জমায়েত ৩৭৭ সাজেদুর রহমান সুমন
৬৮  বাংলা ভাষার ওপর আক্রমণের প্রতিবাদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় একাডেমিক কাউন্সিল সমীপে হাসান হাফিজুর রহমানের খোলা চিঠি ৩৭৮ সাজেদুর রহমান সুমন
৬৯  আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনের লক্ষ্যে ঐক্য প্রচেষ্টা ৩৮০ আবীর
৭০  স্বাধীনতার আহ্বান সম্বলিত শ্রমিক আন্দোলনের থিসিস ৩৮২ আবীর

রাজদীপ দত্ত

নীতেশ বড়ুয়া

৭১  সংবাদপত্রের স্বাধীনতা খর্ব করার প্রতিবাদে সাংবাদিকদের মিছিল ও সভা ৩৯৭ সোহেল
৭২  ভাসানী কর্তৃক গণ-আন্দোলনের ডাক ৩৯৮ আবেদ হোসাইন
৭৩  গণ-আন্দোলনের প্রশ্নে প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানঃ বিক্ষোভ করে সরকারকে টলানো যাবে না। ৩৯৯ সোহেল
৭৪  বিরোধী দলসমূহের কারণে আহ্বানে ঢাকায় সাধারণ ধর্মঘট ৪০১ সোহেল
৭৫  আন্দোলনের প্রস্তুতি গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে সাত ছাত্রনেতার যুক্ত বিবৃতি ৪০৩ নীতেশ বড়ুয়া
৭৬  আটটি বিরোধী দলের উদ্যোগে গণতান্ত্রিক সংগ্রাম কমিটি (ড্যাক) গঠিত- আন্দোলনের আহ্বান ৪০৪ নীতেশ বড়ুয়া
৭৭  চিন্তা ও মোট প্রকাশের স্বাধীনতার ওপর হামলার প্রতিবাদে এবং আন্দোলনের সমর্থনে বুদ্ধিজীবী সম্প্রদায় ৪০৬ নীতেশ বড়ুয়া
৭৮  আইয়ুব সরকারের বিরুদ্ধে মাওলানা ভাসানীঃ “প্রয়োজনে খাজনা বন্ধ করা হবে” ৪০৮ মোঃ আল্লামা ফয়সাল
৭৯  ১১ দফার দাবীতে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান ৪০৯ মোঃ আল্লামা ফয়সাল
৮০  বিক্ষোভকালে ছাত্রদের উপর লাঠিচার্জ ও কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ ৪১৩ নীতেশ বড়ুয়া

 

৮১  ছাত্র-পুলিশ সংঘর্ষঃ লাঠিচার্জ ও কাঁদুনে গ্যাস নিক্ষেপ ৪১৫ নীতেশ বড়ুয়া

 

৮২  বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভায় ছাত্রদের ওপর হামলায় নিন্দা জ্ঞাপন ৪১৮ আহমেদ স্বজন
৮৩  আসাদুজ্জামানের মৃত্যুতে ছাত্রদের শোকসভা ও মিছিল ৪১৯ আহমেদ স্বজন
৮৪  প্রদেশের সর্বত্র ছাত্র ধর্মঘট ও মিছিল ৪২১ আহমেদ স্বজন
৮৫  ১১-দফার ভিত্তিতে ছাত্র গণ-সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়ার শপথ ৪২২ আহমেদ স্বজন
৮৬  ঢাকায় কৃষ্ণ দিবস ৪২৪ আঞ্জুমান আরা
৮৭  ২৫ জানুয়ারি থেকে ৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ঘটনাবলীর সংক্ষিপ্তসার ৪২৬ আঞ্জুমান আরা
৮৮  মাওলানা ভাসানী কর্তৃক আইয়ুব খান প্রস্তাবিত গোল টেবিল বৈঠকের এবং ১১ দফা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান ৪২৯ বিপুল সরকার
৮৯  পল্টনের জনসমুদ্রে গৃহীত ছাত্রসমাজের প্রস্তাবাবলী ৪৩০ বিপুল সরকার
৯০  আগরতলা মামলার আসামী সার্জেন্ট জহুরুল হকের মৃত্যু ৪৩৩ বিপুল সরকার
৯১  পল্টনের জনসভায় মাওলানা ভাসানীর চরমপত্র ৪৩৪ মিঠুন কুমার সেন
৯২  জনগণের দাবীতে ২১ শে ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবসকে সরকারী ছুটি হিসেবে ঘোষণা ৪৩৫ মিঠুন কুমার সেন
৯৩  রাজশাহীতে গুলি ও সান্ধ্য আইনঃ ডাঃ শামসুজ্জোহাসহ ৬ জন হতাহত ৪৩৬ মিঠুন কুমার সেন
৯৪  তথাকথিত আগরতলা মামলা প্রত্যাহৃতঃ মুজিবসহ সকল অভিযুক্তদের মুক্তিলাভ ৪৩৮ মিঠুন কুমার সেন
৯৫  রেসকোর্সের সংবর্ধনা সভার মুজিব কর্তৃক জনসংখ্যার ভিত্তিতে প্রতিনিধিত্ব দাবী ৪৩৯ নীলাঞ্জনা অদিতি
৯৬  রেসকোর্সের সম্বর্ধনা সভায় শেখ মুজিবকে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধি এবং ১১ দফা বাস্তবায়নের পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য মুজিবের প্রতি আহ্বান ৪৪২ নীলাঞ্জনা অদিতি
৯৭  গোলটেবিল বৈঠকে শেখ মুজিবর রহমানের বক্তৃতা ৪৪৩ আলবাব ইয়াফেজ ফাতমি
৯৮  প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খান কর্তৃক জনগণের সার্বভৌমত্ব স্বীকারঃ বয়স্ক ভোটাধিকারের ভিত্তিতে নির্বাচন ও পার্লামেন্টারি শাসন পুনঃপ্রবর্তনের সিদ্ধান্ত ৪৪৯ সুষমা মণ্ডল
৯৯  পদত্যাগ করে আইয়ুব কর্তৃক জেনারেল ইয়াহিয়া খানকে ক্ষমতা গ্রহণের জন্য অনুরোধসহ লিখিত চিঠি। ৪৫০ সুষমা মণ্ডল
১০০  কমিউনিস্ট বিপ্লবীদের পূর্ব বাংলা সমন্বয় কমিটির স্বাধীন পূর্ব বাংলার কর্মসূচী ৪৫১ সুষমা মণ্ডল

নীতেশ বড়ুয়া

নাহিদ মুহাম্মদ

১০১  জনসংখ্যার ভিত্তিতে সার্বজনীন প্রত্যক্ষ ভোটাধিকার ও সার্বভৌম পার্লামেন্টের আহ্বান ৪৬৫ নীলাঞ্জনা অদিতি
১০২  ইয়াহিয়া সরকারের শিক্ষানীতি ও বিরোধী রাজনৈতিক সংগঠনের সমালোচনা করে ছাত্রসমাজের বক্তব্য ৪৬৮ নীলাঞ্জনা অদিতি
১০৩  পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগঃ নীতি ও কর্মসূচী ৪৭০ আদিত্য আনোয়ার

অথৈ ইসলাম

 

১০৪  বৈষম্য সম্পর্কে পিয়ারসন কমিশন রিপোর্ট ৪৭৮ নত মুখে (ফরহাদ)

সৈয়দা অনন্যা রহমান

 

১০৫  গনপ্রতিনিধিদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর, এক ব্যক্তি এক ভোটের ভিত্তিতে নির্বাচন ও অধিক স্বায়ত্বশাসনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ইয়াহিয়া খানের বক্তৃতা ৪৮৩ নিলয় কুমার সরকার

 

১০৬  ইয়াহিয়া খানের ভাষণ সম্পর্কে ছাত্রসমাজের বক্তব্য ৪৮৮ রাফি শামস
১০৭  পূর্ব পাকিস্তানকে বাংলাদেশ নামকরণের পক্ষে বক্তব্য ৪৯২ বিদ্যুদ্বিকাশ মজুমদার অপু
১০৮  পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়ন কর্তৃক স্বাধীন পূর্ব বাংলা প্রতিষ্ঠায় ১১-দফা কর্মসূচী ৪৯৩ বিদ্যুদ্বিকাশ মজুমদার অপু

বিদ্যুদ্বিকাশ মজুমদার অপু

১০৯  প্রেস অর্ডিন্যান্স সম্পর্কে লেখক স্বাধিকার সংরক্ষণ কমিটির বক্তব্য ৪৯৬ বিদ্যুদ্বিকাশ মজুমদার অপু
১১০  ছাত্র ও শ্রমিক নেতাদের হয়রানি ৪৯৭ বিদ্যুদ্বিকাশ মজুমদার অপু
১১১  ইয়াহিয়া খান কর্তৃক ক্ষমতা হস্তান্তরের  পরিকল্পনা ঘোষণা ৪৯৮ পল্লব দাস
১১২  লাহোর প্রস্তাব বাস্তবায়ন কমিটি গঠন ৫০৪ সৈয়দা অনন্যা রহমান

 

১১৩  আইনগত কাঠামো আদেশ ৫০৫ সাকু চৌধুরী

খন্দকার আবদুল্লাহ

ইফফা-ই-ফারিয়া

তানজিম বিন ফারুক

১১৪  আইনগত কাঠামো সংশোধনের আহ্বানঃ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের বিবৃতি ৫২৪ জিকু আশরাফ
১১৫  আইনগত কাঠামো আদেশের প্রতিবাদ এবং ৬ ও ১১-দফা প্রতিষ্ঠার দাবী দিবস ৫২৫ জিকু আশরাফ
১১৬  আইনগত কাঠামো আদেশের প্রতিবাদ ও সার্বভৌম পার্লামেন্টের দাবী ৫২৭ রাফি শামস
১১৭  বন্দী মুক্তি ও দাবী দিবস ৫৩০ রাফি শামস
১১৮  আসন্ন নির্বাচন হবে স্বায়ত্তশাসনের প্রশ্নে গণভোট ৫৩২ নাজমুল হাসান পিয়াস
১১৯  ছাত্রলীগ আহূত জরুরী সভার প্রস্তাবাবলী ৫৩৫ রকিবুল হাসান জিহান
১২০  শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের আহ্বান জানিয়ে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া ৫৩৭ জ্বিন কফিল
১২১  ‘পাকিস্তান-দেশ ও কৃষ্টি’ বই বাতিলের দাবীতে ছাত্র জমায়েত ৫৪৩ জ্বিন কফিল
১২২  প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া কর্তৃক নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন ৫৪৪ তাসাউফ এ বাকি বিল্লাহ
১২৩  ১৭ই সেপ্টেম্বর শিক্ষা দিবস পালন করার আহ্বান ৫৪৬ দীপংকর ঘোষ দ্বীপ
১২৪  শিক্ষা দিবসে ছাত্রলীগের সভার প্রস্তাবাবলী ৫৪৮ দীপংকর ঘোষ দ্বীপ
১২৫  পূর্ব পাকিস্তানের দাবির সমর্থনে সম্পাদকীয় ৫৫১ শিহাব শারার মুকিত
১২৬  জনগণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়ে পূর্ব বাংলা বিপ্লবী ছাত্র ইউনিয়ন ৫৫৩ নিয়াজ মেহেদী

সৈয়দ সীমান্ত

১২৭  নির্বাচনের মাধ্যমে দাবী আদায় না হলে আবার আন্দোলন শুরু হবে ৫৫৬ অনন্যা ফারজানা
১২৮  শেখ মুজিবর রহমানের নির্বাচনী ভাষণ ৫৫৮ কিবরিয়া দূর্লভ
১২৯  মাওলানা ভাসানীর নির্বাচনী ভাষণ ৫৬২ মেহেদী হাসান মুন
১৩০  আন্তঃ প্রাদেশিক বৈষম্যের উপর অধ্যাপক রেহমান সোবহানের বক্তব্য ৫৬৭ মেহেদী হাসান মুন
১৩১  আঞ্চলিক স্বায়ত্বশাসনের ওপর ডঃ মোজাফফর আহমেদ চৌধুরী ৫৭২ আবেদ হোসাইন
১৩২  জলোচ্ছ্বাস কবলিতদের প্রতি উদাসীনতার পরিপ্রেক্ষিতে প্রেসিডেন্ট এর কাছে ১১ জন নেতার তারবার্তা ৫৭৭ আদিত্য আনোয়ার
১৩৩  ‘নির্বাচন নস্যাৎ হলে প্রয়োজনে আন্দোলন হবে’- সাংবাদিক সম্মেলনে শেখ মুজিব ৫৭৯ নত মুখে (ফরহাদ)
১৩৪  নির্ধারিত তারিখে নির্বাচন অনুষ্ঠানের ঘোষণায় ইয়াহিয়া খান ৫৮১ নত মুখে (ফরহাদ)
১৩৫  জলোচ্ছ্বাসের পর কেন্দ্রের ভূমিকার পরিপ্রেক্ষিতে প্রেসিডেন্টের প্রতি মাওলানা ভাসানীর আহ্বান ৫৮৪ আদিত্য আনোয়ার
১৩৬  শেখ মুজিবুর রহমানের নির্বাচনী আবেদন ৫৮৭ আবীর
১৩৭  মাওলানা ভাসানী কর্তৃক স্বাধীন পূর্ব পাকিস্তান ঘোষণা ৫৯০ আবীর
১৩৮ পাকিস্তান জাতীয় পরিষদ ও পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনের ফলাফল ৫৯২ অপরাজিতা নীল
১৩৯  ‘জনগণের সুস্পষ্ট রায় সত্ত্বেও নির্বাচিত প্রতিনিধিদের নিকট প্রকৃত শাসন ক্ষমতা হস্তান্তরিত হওয়ার সম্ভাবনা নেই’ ৫৯৩ রাফি শামস
১৪০  ‘পিপলস পার্টি জাতীয় পরিষদে বিরোধী দলের আসনে বসবে না’ বলে ভুট্টোর ঘোষণা ৫৯৫ সাকু চৌধুরী
১৪১  ভুট্টোর মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের বক্তব্য ৫৯৭ সাকু চৌধুরী
১৪২  জাতীয় মুজাহিদ সংঘ কর্তৃক প্রকাশিত “স্বাধীন পূর্ব পাকিস্তানের রূপরেখা” ৫৯৮ রাফি শামস

সৈয়দ সীমান্ত

আলামিন সরকার

সমীরণ বর্মন 

 

১৪৩  রেসকোর্স ময়দানে গণপ্রতিনিধিদের শপথ ৬১২ তাবাসসুম শিফু

 

১৪৪  ৬ দফা ও ১১ দফার প্রশ্নে কোন আপোষ হবে না কিন্তু পশ্চিম পাকিস্তানী নেতৃবৃন্দের সহযোগিতা চাওয়া হবেঃ শেখ মুজিবুর রহমানের ঘোষণা ৬১৪ নিলয় কুমার সরকার

 

১৪৫  স্বাধীন পূর্ব বাংলা কায়েমের আহ্বান জানিয়ে পূর্ব বাংলা শ্রমিক আন্দোলন ৬১৮ আলামিন সরকার

সজীব সাহা

 

১৪৬  শহীদ আসাদ দিবস পালনোপক্ষে স্বাধীন পূর্ব বাংলা কায়েমের আহ্বান ৬২২ সজীব সাহা

 

১৪৭  আওয়ামী লীগের সাথে তিন দিনের আলোচনা শেষে ভুট্টোর বিবৃতি ৬২৪ তাসাউফ এ বাকি বিল্লাহ
১৪৮  হাইজ্যাককৃত বিমান ধ্বংসের প্রেক্ষিতে শেখ মুজিবুর রহমানের ঘোষণা ৬২৭ চন্দ্র শেখর

 

১৪৯  জাতীয় পরিষদের অধিবেশন আহবানের বিলম্বের সমালোচনায় শেখ মুজিবুর রহমান ৬২৯ চন্দ্র শেখর

 

১৫০  ৩রা মার্চ ঢাকায় জাতীয় সংসদের অধিবেশনঃ প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়ার ঘোষণা ৬৩১ চন্দ্র শেখর
১৫১  শ্রমিক কৃষক সমাজবাদী দলের রাজনৈতিক ঘোষণা ৬৩৩ ফারহাত শায়েরী
১৫২  পাকিস্তান পিপলস পার্টির অধিবেশনে না যোগদানের আহবান ৬৩৫ আদনান আরসালান
১৫৩  ভুট্টোর মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে শেখ মুজিবের বক্তব্য ৬৪০ আদনান আরসালান
১৫৪  জাতীয় পরিষদে যোগদানের আহ্বান জানিয়ে নুরুল আমিন সহ উভয় অংশের নেতৃবৃন্দ ৬৪১ আরিফ রেজা

 

১৫৫  ৬ দফা ভিত্তিক শাসনতন্ত্রের অনুমোদনের বিপক্ষে জনাব ভুট্টোর মন্তব্য ৬৪৩ আরিফ রেজা

 

১৫৬  বাংলাদেশের মানুষের আন্দোলনকে কোন শক্তিই থামাতে পারবে না বলে শেখ মুজিবের ঘোষণা ৬৪৫ আরিফ রেজা

 

১৫৭  স্বাধীন পূর্ববাংলা প্রতিষ্ঠার আহ্বানে বিপ্লবী ছাত্র ইউনিয়ন ৬৪৬                     আবু সালেহ মো. মুসা
১৫৮  স্বাধীন বাংলা প্রতিষ্ঠার আহ্বানে বাংলা ছাত্রলীগ ৬৪৯ আবু সালেহ মো. মুসা
১৫৯  শাসনতন্ত্র সম্পর্কে পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের ১৪ দফা দাবী ৬৫২ মিঠুন কুমার সেন
১৬০  প্রাদেশিক গভর্নর ও প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়ার বিশেষ বৈঠক ৬৫৫ মিঠুন কুমার সেন
১৬১  তৎকালীন রাজনৈতিক অবস্থার উপর পূর্ব পাকিস্তান কমিউনিস্ট পার্টির প্রস্তাব ৬৫৬ মিঠুন কুমার সেন
১৬২  ৬ দফা চাপিয়ে দেয়া হবে নাঃ শেখ মুজিব ৬৫৮ শেখ ইমরান

 

১৬৩  প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া কর্তৃক জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত ৬৬২ হাসান তারেক ইমাম

 

১৬৪  জাতীয় পরিষদ অধিবেশন স্থগিত ঘোষণার প্রেক্ষিতে দেশব্যাপী ধর্মঘটের আহবানসহ শেখ মুজিবুর রহমানের ঘোষণা। ৬৬৪ হাসান তারেক ইমাম

 

১৬৫  শেখ মুজিবুর রহমানকে সশস্ত্র আন্দোলনের মাধ্যমে স্বাধীন দেশ প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়ে পূর্ব বাংলা শ্রমিক আন্দোলন ৬৬৬ সোহেল
১৬৬  স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়ে পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ ৬৬৮ সোহেল
১৬৭  ঢাকায় গুলি চালানোর পরিপ্রেক্ষিতে শেখ মুজিবুর রহমানের প্রেস বিজ্ঞপ্তি ৬৭১ আজম তাবরেজ

 

১৬৮  ঢাকায় জনসভায় ক্ষমতা হস্তান্তরের আহ্বান শেখ মুজিবুরের ৬৭৪ দিবস কান্তি

 

১৬৯  ভুট্টোর ভূমিকার নিন্দায় পশ্চিম পাকিস্তানী রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ৬৭৮ তানজিলুর রহমান

নাহিদ মুহাম্মদ

 

 

১৭০  ব্যাংক ও সরকারী অফিসের প্রতি শেখ মুজিবের নির্দেশাবলী ৬৮৫ নাহিদ মুহাম্মদ

 

১৭১  সেনাবাহিনী ব্যারাকে ফেরতঃ দেশব্যাপী আন্দোলন ৬৮৭ মেহেদী হাসান মুন

 

১৭২  প্রদেশব্যাপী আন্দোলনের ওপর প্রতিবেদন ৬৯১ রুবাইদ মেহেদী অনিক
১৭৩  সংহতি বিরোধী তৎপরতার উপর প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের বক্তৃতা ৬৯৩
১৭৪  ‘আপোষের বাণী আগুনে জ্বালিয়ে দাও’- লেখক শিল্পীদের আহ্বান ৬৯৬ সুষমা মণ্ডল
১৭৫  টিক্কা খানকে পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর নিয়োগ ৬৯৮ ফকরুজ্জামান সায়েম
১৭৬  কমিউনিস্ট বিপ্লবীদের পূর্ব বাংলা সমন্বয় কমিটি কর্তৃক স্বাধীন বাংলাদেশ স্থাপনের উদ্দেশ্যে গেরিলা যুদ্ধের আহ্বান ৬৯৯ নীতেশ বড়ুয়া

 

১৭৭  পাকিস্তানের শাসনতন্ত্রের জন্য ১৭ দফা প্রস্তাব ৭০০ খোন্দকার আবদুল্লাহ
১৭৮  রেসকোর্স ময়দানে প্রদত্ত শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণ ৭০৩ খোন্দকার আবদুল্লাহ
১৭৯  মুজিব কর্তৃক দশ-দফার ঘোষণা ৭০৬ ফকরুজ্জামান সায়েম
১৮০  স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠার আহ্বানে ফরওয়ার্ড স্টুডেন্টস ব্লক ৭০৮ ফকরুজ্জামান সায়েম
১৮১  গেরিলা যুদ্ধ করার নিয়ম সহ একটি বেনামি লিফলেট ৭১০ ফকরুজ্জামান সায়েম
১৮২  স্বাধীন বাংলাদেশ ছাত্র সংগ্রাম গঠনের আহবান ৭১১ সজীব সাহা
১৮৩  স্বাধীন বাংলা প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম অব্যাহত রাখার আহবান ৭১২ সজীব সাহা
১৮৪  মুক্তি সংগ্রামে অবতীর্ণ হওয়ার আহ্বানে মাওলানা ভাসানী ৭১৫ নাহিদ মুহাম্মদ

 

১৮৫  নির্বাচিত প্রতিনিধিদের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরই সংকট মুক্তির একমাত্র পথ- একটি সম্পাদকীয় অভিমত ৭১৭ নাহিদ মুহাম্মদ

 

১৮৬  অসহযোগ আন্দোলন ত্যাগ করে গেরিলা লড়াইয়ে আহ্বান জানিয়ে পূর্ব পাকিস্তানের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী-লেনিনবাদী) ৭১৮ নাহিদ মুহাম্মদ

 

১৮৭  পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর হিসেবে লেঃ জেঃ টিক্কা খানের শপথ গ্রহণ সংক্রান্ত খবর ৭২০ নাহিদ মুহাম্মদ

 

১৮৮  ‘শেখ মুজিবের সঙ্গে এক হয়ে সর্বাত্মক সংগ্রাম করব’- পল্টনের জনসভায় মাওলানা ভাসানী ৭২১ সাজেদুর রহমান সুমন
১৮৯  মাওলানা ভাসানীর ১৪ দফা কর্মসূচী ঘোষণা ৭২৪ সাজেদুর রহমান সুমন
১৯০  সরকারী ও আধা-সরকারী সংস্থাসমূহের প্রতি আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে তাজউদ্দিনের নির্দেশাবলী ৭২৬ সাকু চৌধুরী

 

১৯১  অবিলম্বে জনপ্রতিনিধিদের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরের আহ্বান জানিয়ে একটি সম্পাদকীয় ৭২৮ নীলাঞ্জনা অদিতি
১৯২  ভুট্টোর ভূমিকার সমালোচনায় ঢাকার সংবাদ পত্র ৭২৯ আরিফ রেজা

 

১৯৩  অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড সচল রাখার ব্যাপারে আওয়ামী লীগের নির্দেশাবলী ৭৩১ আরিফ রেজা
১৯৪  স্বাধীন পূর্ব বাংলা কায়েমের সংগ্রামের আহবান ৭৩৪ নীলাঞ্জনা অদিতি
১৯৫  আওয়ামী লীগের প্রতি জাতীয় পরিষদের সংখ্যালঘিষ্ঠ দলগুলোর সমর্থন ৭৩৬ আজম তাবরেজ

 

১৯৬  দুই সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের হাতে ক্ষমতা দেয়ার আহ্বান জানিয়ে ভুট্টো ৭৩৮ নীলাঞ্জনা অদিতি
১৯৭  শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক আন্দোলনের নতুন কর্মসূচী ঘোষণা ৭৩৯ সাজেদুর রহমান সুমন
১৯৮  সংখ্যাগরিষ্ঠতা ভিত্তিক সরকার, পাকিস্তানের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। ভুট্টোর ঘোষণা। ৭৪৭ অপরাজিতা নীল

 

১৯৯  সংখ্যালঘিষ্ঠ দলসমূহ কর্তৃক ভুট্টোর ভূমিকার সমালোচনা ৭৪৯ রুবাইদ মেহেদী অনিক

 

২০০  মুজিব- ইয়াহিয়া বৈঠকের উপর ঢাকার সংবাদপত্রের প্রতিবেদন ৭৫৪ বোরহান উদ্দিন শামীম

 

২০১  ইয়াহিয়া-মুজিবের আপোষের কোন প্রশ্নই উঠতে পারে না বলে মাওলানা ভাসানীর ঘোষণা ৭৫৬ নীতেশ বড়ুয়া
২০২  অসহযোগ আন্দোলনের ১৬ দিন ৭৫৮ রাফি শামস
২০৩  আন্দোলন চলবেঃ ইয়াহিয়ার সাথে প্রথম দিনের আলোচনার পর শেখ মুজিবের ঘোষণা ৭৬০ রাফি শামস
২০৪  শেখ মুজিব কর্তৃক সেনাবাহিনীর হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে তদন্ত কমিটি গঠনের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান। ৭৬৩ পল্লব দাস
২০৫  মুজিব ইয়াহিয়া আলোচনার ওপর সংবাদপত্রের প্রতিবেদন ৭৬৫ আদিত্য আনোয়ার
২০৬  জয়দেবপুরে ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টকে নিরস্ত্র করার প্রতিরোধের সংবাদ ৭৬৭ আদিত্য আনোয়ার
২০৭  মুজিব-ইয়াহিয়া বৈঠক সংকট নিরসনের পথে এগুচ্ছে ৭৬৯ আদিত্য আনোয়ার
২০৮  ‘সব ঠিক হয়ে যাবে’- প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়ার সাথে আলোচনার পর ভুট্টোর মন্তব্য ৭৭১ আবীর
২০৯  প্রতিরোধ দিবস পালন ৭৭২ আবীর
২১০  ২৫ শে মার্চ অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় পরিষদের অধিবেশন আবার স্থগিতঃ প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়ার ঘোষণা ৭৭৪ পল্লব দাস
২১১  মুজিব ও ভুট্টোর সাথে ইয়াহিয়ার বৈঠক ৭৭৫ আবীর
২১২  ক্ষমতা হস্তান্তরে কোন আইনগত বাঁধা নেই বলে এ, কে, ব্রোহির অভিমত ৭৭৭ রুবাইদ মেহেদী অনিক
২১৩  লেখক সংগ্রাম শিবিরের কবিতা পাঠের আসর ৭৭৮ মিঠুন কুমার সেন
২১৪  স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা জায়গায় উড়তে দেখার উপর সংবাদপত্রের প্রতিবেদন ৭৭৯ পল্লব দাস
২১৫  “বাংলার পতাকা জনতা সবখানেই উড়িয়ে দিয়েছে” ৭৮০ মিঠুন কুমার সেন
২১৬  আলোচনায় অগ্রগতি হচ্ছে বলে ভুট্টোর ঘোষণা ৭৮১ রুবাইদ মেহেদী অনিক
২১৭  সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেয়ার ব্যাপারে শেখ মুজিবের হুঁশিয়ারি ৭৮২ রুবাইদ মেহেদী অনিক
২১৮  সারাদেশে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর উস্কানিমূলক আচরণের উপর সংবাদপত্রের রিপোর্ট ৭৮৪ রুবাইদ মেহেদী অনিক
২১৯  ব্যবসা-বাণিজ্য চালিয়ে যাবার জন্য শেখ মুজিবের আহ্বান ৭৮৬ তানজিম বিন ফারুক
২২০  শেখ মুজিব কর্তৃক ২৭ তারিখে বাংলাদেশে হরতালের আহ্বান ৭৮৭ তানজিম বিন ফারুক
২২১  ঢাকার গণহত্যার ওপর সায়মন ড্রিং এর প্রতিবেদন ৭৮৮ তানজিম বিন ফারুক
২২২  আওয়ামী লীগ সংবিধান কমিটি কর্তৃক ৬ দফার ভিত্তিতে প্রণীত পাকিস্তানের খসড়া শাসনতন্ত্র (অংশ) ৭৯৩ তানজিম বিন ফারুক

অমিতাভ বড়ুয়া

নীতেশ বড়ুয়া

কিবরিয়া দূর্লভ

২২৩  ইত্তেফাক সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন কর্তৃক মোসাফির ছদ্মনামে লিখিত রাজনৈতিক মঞ্চ শীর্ষক একটি উপ-সম্পাদকীয় ৮০৯ নীলাঞ্জনা অদিতি
২২৪  ইত্তেফাক পত্রিকার ‘মিঠো-কড়া’ শীর্ষক আরও একটি উপ-সম্পাদকীয় ৮১৩ আদিত্য আনোয়ার
২২৫  অবিলম্বে ক্ষমতা হস্তান্তরের আহ্বান সম্বলিত ঢাকার বিভিন্ন দৈনিক ‘আর সময় নাই’ শিরোনামে প্রকাশিত যৌথ সম্পাদকীয় ৮১৫ আদিত্য আনোয়ার
নীতেশ বড়ুয়া
২২৬  ঢাকায় প্রকাশিত বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় বাংলাদেশের অসহযোগ আন্দোলনের চিত্র ৮১৭ নীতেশ বড়ুয়া
২২৭  ঢাকায় বিভিন্ন দল ও সংগঠনের অসহযোগ আন্দোলনকালীন কর্মসূচী ৮২৩ মিঠুন কুমার সেন

নীলাঞ্জনা অদিতি

২২৮ মার্চ’৭১- এর অনুষ্ঠিত ইয়াহিয়া-মুজিব বৈঠক সম্পর্কে একটি প্রতিবেদন ৮৩৪ শামীম মেহেদী
নিলয় কুমার সরকার সাকু চৌধুরী

সাইটে অনুবাদকৃত ২য় খণ্ডের দলিলসমূহ মূল দলিলের সাথে ক্রস-ভেরিফিকেশনের জন্য এই উইকিসোর্স লিঙ্কে ক্লিক করুন। উল্লেখ্য, মূল দলিলে উল্লিখিত পৃষ্ঠা নম্বরের সাথে ‘২৭’ যোগ করলে উইকিসোর্সে সংশ্লিষ্ট পৃষ্ঠা পাওয়া যাবে। যেমন মূল দলিলের ১ নম্বর পৃষ্ঠাটি দেখার জন্য উইকিসোর্সের (১+২৭) বা, ২৮ নং পৃষ্ঠাটি দেখুন।